এই তোর পরিচয় দে। আসসালামু আলাইকুম, ফয়সাল আলম…বঙ্গবন্ধু হল। এই তুই হলের নাম উচ্চ স্বরে বললি না কেন?. তুই মুরগী’হ, চেয়ার’হ, পুশ-আপ দে। এভাবেই বঙ্গবন্ধু হলে র‌্যাগিং করায় ১১ জনকে বহিষ্কার করেছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন।

অসংখ্য শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করার পরেও থামছে না জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে র‌্যাগিং ব্যবস্থা।আবারও ৪৮তম ব্যাচকে র‌্যাগিংয়ের দায়ে তৃতীয় বর্ষের (৪৭তম ব্যাচ) বিভিন্ন বিভাগের ১১শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করেছে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) প্রশাসন।

বহিষ্কৃতরা হলেন, মার্কেটিং বিভাগের মো. শিহাব ও মোহাম্মদ মশিউর রহমান,একাউন্টিং এন্ড ইনফরমেশন সিস্টেমস বিভাগের ছালাউদ্দিন ইউসুফ ও রোজেন নূর, নাটক ও নাট্যতত্ত্ব বিভাগের তামীম হোসেন ও রিজওয়ান রাশেদ, বাংলা বিভাগের শিমুল আহমেদ,চারুকলা বিভাগের আকাশ হোসেন, ইংরেজি বিভাগের সাকিল মাহমুদ, ফিন্যান্স অ্যান্ড ব্যাংকিং বিভাগের ফয়জুল ইসলাম নিরব এবং ইতিহাস বিভাগের সারোয়ার হোসেন শাকিল। এদের মধ্যে শিহাবকে দুই বছরের জন্য এবং বাকি ১০জনকে এক বছরের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। তাছাড়া তারা ক্যাম্পাস চলাকালীন বিশ্ববিদ্যালেয় অবস্থান বা ক্লাস করতে পারবে না। তারা প্রথম বর্ষ থেকেই বঙ্গবন্ধু হলে অবৈধ্যভাবে অবস্থান করছিলেন।

গত ২০১৯ সালের ২৩ জুলাই বঙ্গবন্ধু হলে র‌্যাগিং সংক্রান্ত ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটির সিদ্বান্তে এ আদেশ দেওয়া হয়েছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য প্রণীত শৃঙ্খলা সংক্রান্ত অধ্যাদেশ-২০১৮ এর ৫(ঘ) ধারা লংঘন করায় অধ্যাদেশের ৩(২)(খ) ধারা অনুযায়ী অনুষ্ঠিত বিশেষ সিন্ডিকেটের দিন হতে বহিষ্কারাদেশ কার্যকর হবে।

প্রসঙ্গত , ২০১৯ সালের ২২ জুলাই দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে তৃতীয় বর্ষের (ঘটনার সময় দ্বিতীয় বর্ষ) ৩০-৩৫জন শিক্ষার্থী র‌্যাগিং দেওয়ার জন্যে গণরুমে (প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থীরা যেখানে থাকে) প্রবেশ করে। র‌্যাগিং দেওয়ার সময় প্রথম বর্ষের ফয়সাল আলমকে ডেকে নিয়ে তাকে পরিচয় দিতে বলে। এ সময় ফয়সাল উচ্চ স্বরে হলের নাম বলতে না পারায় দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থীরা ফয়সালকে মুরগী- চেয়ার হতে এবং পুশ-আপ দিতে বললে এতে ফয়সাল অস্বীকৃতি জানালে দ্বিতীয় বর্ষের মার্কেটিং বিভাগের শিহাব তাকে ডান গালে দুটি থাপ্পড় দেয়। দ্বিতীয় থাপ্পড় দেওয়ার পরেই ফয়সাল খিচুনি দিয়ে পড়ে যায় এবং তার কান দিয়ে রক্ত গড়িয়ে পড়ে। এক পর্যায়ে ফয়সাল যখন বাকরুদ্ধ হয়ে যায় তখন তার বন্ধুরা এবং দ্বিতীয় বর্ষের তিনজন মিলে তাকে বিশ্ববিদ্যালয়ের চিকিৎসা কেন্দ্রে নিয়ে যায়।

দেশ-ইনসাইডার/একে